শনিবার, মার্চ ২, ২০২৪

ময়মনসিংহ জেলার তারাকান্দা থানায় নিখোঁজ ব্যক্তির মৃতদেহ উদ্ধার ও ২৪ ঘন্টার মধ্যে সকল আসামী গ্রেফতার,

আপডেট:

বিশেষ প্রতিনিধি বিশ্বনাথ সাহা বিশু,

গত ২৯ আগস্ট ২০২৩ তারিখ রাত অনুমান ০৯.০০ ঘটিকায় লাল মিয়া (৫০) নামক এক ব্যক্তি নিখোঁজ হলে পরদিন ময়মনসিংহ জেলার তারাকান্দা থানায় জিডি নং-১৪৩৬, তারিখ—৩০/০৮/২০২৩ লিপিবদ্ধ করা হয়। অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তা এস আই রায়হান বিভিন্ন তথ্যাদি সংগ্রহ, বিশ্লেষণ ও পর্যালোচনা করে জনৈক সোহেল মিয়া (৩৫)-কে লাল মিয়ার অপহরণকারী হিসেবে সনাক্ত করেন। অতঃপর তারাকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জনাব মো: আবুল খায়ের-এর নেতৃত্বে উক্ত আসামীকে ওই রাত ০৩:০০ ঘটিকায় তারাকান্দা থানাধীন নলদিঘী গ্রাম থেকে গ্রেফতার করা হয়।

বিজ্ঞাপন

জিজ্ঞাসাবাদে সোহেল জানায় যে, সঙ্গীয় শাহীন মিয়া (৪৫), পিতা-আঃ জব্বার খান ও আব্দুল বারেক (৪০), পিতা- আলী আকবর-দ্বয়ের সাথে আসামী সোহেল ভিকটিম লাল মিয়াকে হত্যার পরিকল্পনা করে। এরপর ২৯ আগস্ট রাত অনুমান ২২.০০ ঘটিকায় আসামী সোহেল মিয়া ও আব্দুল বারেক ভিকটিম কে অনুসরণ করে এবং এক পর্যায়ে নির্জন স্থানে নিয়ে গিয়ে আসামী শাহীনসহ তিনজন একত্রে ধারালো ছুরি দ্বারা ভিকটিমের গলায় ও পেটে প্রাণঘাতী একাধিক গুরুতর জখম দ্বারা মৃত্যু নিশ্চিৎ করে। এরপর আসামী সোহেল একটি বস্তায় ভিকটিমের লাশ এবং অন্য একটি বস্তায় বালি-মাটি ভরে উভয় বস্তা একসাথে পার্শ্ববর্তী জনৈক মজিবর রহমানের পুকুরে ফেলে দিয়ে লাশটি গুম করে। হত্যাকান্ড সংঘটিত হওয়ার ২৪ ঘন্টার মধ্যে আসামীর সোহেল মিয়া ও তার সহযোগীরা গ্রেফতার হওয়ায় থানা এলাকায় শান্তিপূর্ণ পরিবেশ ফিরে আসে।

ভিকটিম লাল মিয়া আসামী সোহেলের কাছে সুদের ব্যবসার ৪,০০,০০০/—(চার লক্ষ) টাকা এবং আসামী আব্দুল বারেক এর কাছে ২,১৫,০০০/— সুদের টাকা পাওনা ছিল এবং এই টাকার দায়মুক্তির উদ্যেশ্যেই তারা এই হত্যাকান্ড সংঘটিত করেছে মর্মে পুলিশের কাছে প্রাথমিকভাবে স্বীকার করেছে। ধৃত আসামীদেরকে বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:

সর্বাধিক পঠিত