বুধবার, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২৪

এবার কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণে মাঠে আদাবর থানা পুলিশ , বাবু নামে একজন আটক

আপডেট:

বিশেষ প্রতিনিধি

এবার কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণে মাঠে ডিএমপির আদাবর থানা পুলিশ , বাবু নামে একজন আটক-, ১৮ ডিসেম্বর বিভিন্ন গণমাধ্যমে রাজধানীর আদাবর সুনিবিড় হাউজিং এ গড়ে উঠেছে ভয়ংকর কিশোর গ্যাং, অস্বস্তিতে আশপাশ এলাকাবাসী ,শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পরপরই ডিএমপির আদাবর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মাহাবুব রহমান এর নির্দেশে উক্ত থানা পুলিশ মাঠে নামে এবং বাবু নামে একজন কিশোর গ্যাং আটক করতে সক্ষম হয় বলে নিশ্চিত করেন এস আই মো : নুরুজ্জামান তবে কিশোর গ্যাংদের অন্যান্য সদস্যরা আজও তৎপর ছিল এবং গতকালের মতো আজও দারুস সালাম থানার আহমেদ নগরে এসে জনগণের উপর হামলা করে , পরবর্তীতে আদাবর থানা ও দারুস সালাম থানায় আহমেদ নগর এলাকার জনগণের পক্ষ থেকে ফোন করে জানালে দারুস সালাম থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন তবে কাউকে আটক করতে পারেনি এবং আদাবর থানা পুলিশ আবারো মাঠে নামে অন্যান্য কিশোর গ্যাংদের আটকের জন্য , পাশাপাশি দারুস সালাম থানা পুলিশও কিশোর গ্যাং চিহ্নিত করে আটক করতে তৎপর রয়েছে , এতে এলাকার জনমনে স্বস্তি ফিরে আসে । কিশোর গ্যাং সম্বন্ধে উক্ত এলাকাবাসী বলেন এসব অপরাধীদের লালন পালন করছেন সমাজের কিছু মুখোশধারী ব্যক্তি যারা কিছু স্বনামধন্য ব্যক্তিদের নাম বিক্রি করে এসব অপকর্মে সহযোগিতা করে অবৈধ অর্থ উপার্জন করছেন , যাদের নাম বিক্রি করে এসব অপরাধ করাচ্ছেন, তারা হয়তো জানেনই না , এতে সরকারের ও প্রশাসনের সুনাম নষ্ট হচ্ছে বলে এলাকাবাসী মনে করছেন । জনগণ বলেন এরা দীর্ঘদিন আদাবর সহ দারুস সালাম থানা এরিয়ায় গিয়েও অপরাধ করে আসছে । অপরাধ করে ধরা পড়লে কিশোর গ্যাং লালন পালনকারী ওই মুখোশধারী ব্যক্তিরা তাদের ছাড়িয়ে নিয়ে আসে, এমনকি যারা অপরাধে প্রতিবাদ করেন তাদের তুলে নিয়ে যাওয়া হয় সুনিবিড় হাউজিং এ, এরপর অভিভাবকদের টাকার বিনিময়ে তাদের কাছ থেকে ছাড়িয়ে আনতে হয় , টাকা দিতে রাজি না হলে এরা বিভিন্ন ভয় দেখায় ভুক্তভোগীদের। দারুস সালাম থানার দ্বীপনগর আহমেদনগর এর এক ব্যক্তি বলেন কিছুদিন আগে আমার বাই সাইকেল চুরি হয়েছে এবং আমি সুনিবিড় হাউজিং এ গিয়ে যার কাছে পেয়েছি তিনি বলেন সাইকেল এর মূল্য দিয়ে নিতে হবে , আমি বললাম কেন , চোর বলল এটাই নিয়ম টাকা না দিলে দেওয়া হবে না , বেশি বাড়াবাড়ি করলে তাদের লালন পালনকারীকে দিয়ে হয়রানির হুমকি দেন , সুনিবিড় হাউজিং ও দারুস সালাম থানার দ্বীপনগর আহমেদনগর এলাকার একাধিক এলাকাবাসী আরো বলেন এরা যা করেন সবই আমাদের মাথা পেতে নিতে হতো , কারণ এদের বিরুদ্ধে গেলে এরা নানান ভাবে হয়রানি করতেন তাই কেউ এদের বিরুদ্ধে মুখ খুলতোনা , তবে তারা র‍্যাব -২ এর প্রশংসা করে বলেন বিভিন্ন জায়গায় তারা এই শ্রেণীর অপরাধীদের গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনতে সক্ষম হয়েছে তাই এদেরও দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করার দাবি জানান । এ ব্যাপারে দারুস সালাম থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ নজরুল ইসলাম বলেন – আমার থানা এলাকায় কিশোর গ্যাং , চোর, ছিনতাইকারী, মাদক ব্যবসায়ী , জুয়াড়ির স্থান নেই , যারা এই এসব অপকর্মে জড়িত হবে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা অব্যাহত থাকবে । এ ব্যাপারে জানতে চাইলে আদাবর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মাহাবুব রহমান বলেন আমরা জনগণের তথ্যে গুরুত্ব দিয়ে কাজ করে যাচ্ছি, কিশোর গ্যাং চিহ্নিত করে আটকের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে । এদিকে দারুস সালাম থানা ও আদাবর থানার একাধিক ব্যক্তি পুলিশের ভূমিকায় প্রশংসা করে বলেন এভাবে যদি পুলিশ সব সময় তৎপর থাকে তাহলে সমাজে কিশোর গ্যাং থাকবে না ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:

সর্বাধিক পঠিত